Home / জাতীয় / শিক্ষক বজলুর রহমান এর যত অপকর্ম – দেখার কেউ নেই

শিক্ষক বজলুর রহমান এর যত অপকর্ম – দেখার কেউ নেই

ঢাকার ডাক ডেস্ক : মো. বজলুর রহমান। সিলেটের জকিগঞ্জে অবস্থিত শেরুলবাগ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কৃষি শিক্ষা বিভাগের সহকারী শিক্ষক। কিন্তু স্কুল খোলা থাকলেও সারাবছরই তিনি পড়ে থাকেন নিজ গ্রামের বাড়ি জামালপুর জেলার সৈয়দপুরের নাকাটি গ্রামে। ক্লাস না করিয়েও স্কুল থেকে বেতনও তোলেন নিয়মিত। আর তার এ কাজে প্রত্যক্ষ সহযোগীতা করেন তার স্কুলেরই প্রধান শিক্ষক জ্যোতিষ চন্দ্র পাল। একজন অভিভাবকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঢাকার ডাক এর পক্ষ থেকে মার্চের ১৬ তারিখ প্রধান শিক্ষককে মুঠোফোনে কল দিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষকের ব্যপারে জানতে চাওয়া হলে তিনি জানান, বজলুর রহমান তার মা’র অসুস্থতার কথা বলে ৫-৭ দিন ধরে মৌখিক অনুমতিতে ছুটিতে আছেন। তখন তাকে জানানো হয় যে, তার মা তো অনেক দিন আগেই মারা গেছেন। এ কথা শুনে মিটিংয়ে আছি বাহানায় তিনি পড়ে কল ব্যাক করবেন করে কলটি কটে দেন। এর পর একাধিকবার তাকে কল করা হলেও তিনি কলটি রিসিভ করেননি।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জনাব আব্দুস সালাম এর মুঠোফোনে এ বিষয়ে জানানো হলে তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে জানান। পরবর্তীতে তাকে কল দেওয়া হলে তিনি অভিযুক্ত শিক্ষকের পক্ষে সাফাই গাইতে থাকেন এবং বলেন যে স্থানীয় কেউ তো অভিযোগ করেননি, আপনার এতো মাথা ব্যাথা কেনো। এতে করে যেমন শিক্ষার্থীরা পাঠ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, অপরদিকে ক্লাস না করিয়েও বেতন তুলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতিমুক্ত স্বপের বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নকে বাধাগ্রস্ত করছে।

প্রশ্ন আসে, তাহলে বজলুর রহমান সারাবছর বাড়িতে কি করেন। ঢাকার ডাক এর অনুসন্ধানে উঠে আসে মো. বজলুর রহমান এর কুকীর্তির নানা চিত্র। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জামালপুর জেলার সদর উপজেলার ১নং কেন্দুয়া ইউনিয়নের সাত নং ওয়ার্ডের নায়েব আলী একাধিক বিয়ে করেন। ছোট বউয়ের ছেলে স্কুল শিক্ষক বজলুর রহমান ও তার বড় ভাই হাফেজ রফিকুল ইসলাম ও তাদের মা পিতার নিকট থেকে সমস্ত সম্পত্তি লিখে নেয়। এত বড় তিন ভাই যথাμমে ফররুখ আহমেদ মুকুল, তারা মিয়া ও চাঁন মিয়া পিতার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত হয়। তাদের কখনও বাড়ির আশেপাশেও ঘেষতে দেননা বজলুর রহমান। এ অবস্থাতেই চাঁন মিয়া শশুরবাড়িতেই মৃত্যুবরণ করেন। অথচ এই ফররুখ আহমেদ মুকুল দীর্ঘদিন সরকারি চাকরি করে তার পরিবারকে প্রতিষ্ঠিত করেছে ও সৎ ভাইদের মানুষ করেছে। বাড়িঘর ঠিক করেছে। অথচ তখনও তিনি জানতেন না যে, তার ভাইয়েরা সব কিছু লিখে নিয়েছে। তারপরও মায়ার টানে, ফররুখ আহমেদ মুকুল তার ভাইদের কাছে থেকে সাড়ে চার শতাংশ জমি μয় করে সেখানে একটি ঘর তৈরি করেন। এর পর বজলুর রহমানের আরও ভয়াবহ রূপ বের হয়ে আসে। বিμিত সম্পত্তি ফিরে পাবার জন্য ফররুখ আহমেদ মুকুল ও তার ভাইদের বিরুদ্ধে সম্পত্তি দখল ও দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলার অভিযোগ তুলে জামালপুর থানায় জিডি ও মামলা করে। জিডি নং ২৫৬, তাং : ৫/৩/২০২২ইং ও মামলা নং ১৪৩/২২। আশ্চর্যের বিষয়, কোর্টের নথি থেকে জানা যায়, যেই সময়কালে জিডি ও মামলা করা হয়েছে, মামলার বিবাদী ফররুখ আহমেদ মুকুল সেসময় দেশেই ছিলেন না। তিনি ভারতে প্রফেশনাল ট্রেনিংয়ে ছিলেন। কোর্টে জমাকৃত পাসপোর্ট, ভিসা ও টিকেটে তার প্রমান পাওয়া যায়। আরেক বিবাদী লুৎফর রহমান নরসিংদীতে চাকুরিরত অবস্থায় ছিলেন। জানা যায় এ অত্যাচার থেকে বাঁচতে ফররুখ আহমেদ মুকুল তার সম্পত্তি বিμি করে ঢাকায় চলে আসতে চাচ্ছেন। কিন্তু বজলুর রহমান একের পর এক জিডি ও মিথ্যা মামলা করে তাকে হয়রানি করে আসছেন। এর আগে তারই আরেক ভাই লুৎফর রহমানের সম্পত্তি একই কায়দায় দখল করে তাকে এলাকাছাড়া করে এই বজলুর রহমান। আর তার এই অপকর্মে সহযোগীতা করে এলাকারই কিছু সুবিধাভোগী চক্র।

এলাকা সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে সৎ ভাইয়েরা ফররুখ আহমেদ মুকুল এর বাড়িতে বিদ্যুতায়িত করে রাখে তাকে মারার জন্য। সেজন্য জামালপুর থানায় একটি জিডিও করা হয়। জিডি নং : ৮৪২, তাং : ১৭/১০/২০১৮ইং। এলাকাবাসী জানায়, হুজুরের বেশে চলাচলকারী বজলুর রহমান প্রকৃত অর্থে একজন ভন্ড লোক। শুধু তার ভাইদেরই নয় এলাকার বিভিন্ন অপকর্মে ও মামলাবাজীতেও সে পটু। তার মামলার ভয়ে প্রক্যাশ্যে কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বলতে রাজী হয় না। তার চরিত্র নিয়েও লোকমুখে নানান কথা শোনা যায়। জামালপুর পুলিশ লাইনের অবঃ আরআই এর মেয়েকে বিয়ে করে বাসর রাতের একদিন পরই তালাক দিয়ে চলে আসে বজলুর রহমান। এছাড়া, এলাকার বিভিন্ন লোকজনের কাছ থেকে চাকরি দেবার নাম করে টাকা নিয়ে চাকরি তো দেয়ইনি, উল্টো তাদের টাকাও মেরে দিয়েছে। টাকা চাইলে সবাইকে মামলা করার ভয় দেখায়। তার সাথে সম্পর্ক করে গ্রামের অনেক পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে। স্থানীয় একজন জানান, “শুনছি তিনি হবিগঞ্জের স্কুলের শিক্ষক কিন্তু সারাবছর তো এখানেই পড়ে থাকে আর এর তার পিছে লাইগা থাকে। সরকার তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না কেন।” এসব ব্যাপারে জানতে বজলুর রহমানের মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার কল করা হলেও তিনি কলটি রিসিভ করেননি।

Check Also

নেত্রকোণায় টিটিসি’র উদ্যোগে প্রবাসী কর্মীদের জীবন বীমা বিষয়ক সচেতনতা সভা

গোলাম কিবরিয়া সোহেল, নেত্রকোণা প্রতিনিধি :   নেত্রকোণা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (টিটিসি)-এর উদ্যোগে ২৫ মে সকাল ১১টায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x