Breaking News
Home / উপ-সম্পাদকীয় / শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া সমস্যার কীভাবে সমাধান করা সম্ভব

শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া সমস্যার কীভাবে সমাধান করা সম্ভব

আফতাব চৌধুরী

স্বাধীনতার পর বারবার বলা হয়েছে, আমাদের দেশে ক’বছরের মধ্যে প্রারম্ভিক শিক্ষা সার্বজনীন, অবৈতনিক ও বাধ্যতামূলক করা হবে। সার্বজনীন প্রারম্ভিক শিক্ষার লক্ষ্য পূরণের জন্য সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। তার মধ্যে রয়েছে স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, বিশ্ববিদ্যালয়সহ নানামুখী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা।

বর্তমান সরকার নিয়মতান্ত্রিক শিক্ষাব্যবস্থার পাশাপাশি বিকল্প বা পরিপূরক শিক্ষাব্যবস্থার সুযোগ সৃষ্টির চেষ্টা চালাচ্ছে। দেশব্যাপী উন্নতমানের শিক্ষার সুযোগ ও প্রসার ঘটাতে শিক্ষা দফতরের মাধ্যমে যে প্রয়াস চলছে তাও প্রশংসার দাবি রাখে। পরিমাণগতভাবে গোড়ার দিকে সাফল্য এলেও যে সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা নিয়ে শিক্ষা দফতর এগিয়ে যাচ্ছিল তাতে চৈনিক দেয়ালস্বরূপ বাধা হয়ে দাঁড়ায় বিদ্যালয়-ছুটদের সমস্যা। বর্তমান বিদ্যালয়-ছুটদের সমস্যা দফতরের কাছে তথা সরকারের কাছে বিশাল একটি চ্যালেঞ্জস্বরূপ। ছাত্রছাত্রীদের বিদ্যালয়মুখী করার জন্য তাদের বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক বিতরণ করা থেকে শুরু করে মধ্যাহ্নকালীন আহার, পোশাক, অবৈতনিক শিক্ষা, বিভিন্ন বৃত্তি, অর্থনৈতিকভাবে পিছিয়ে থাকা ছাত্রছাত্রীদের জন্য নানা সুবিধা দিচ্ছে সরকার। এছাড়াও আছে বিভিন্ন ধরনের প্রকল্প, ছাত্রছাত্রীদের জন্য রয়েছে শিক্ষামূলক ভ্রমণ, মেয়েদের জন্য সেল্ফ ডিফেন্স ট্রেনিং ইত্যাদি আরও কত কী। এত কিছুর পরও আমরা কেন আমাদের কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছতে পারছি না, তা খুব ভাবনার বিষয়। কারণ শিক্ষাকে সবার কাছে পৌঁছে দেবার জন্য সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয়, উচ্চতর মাধ্যমিক বিদ্যালয় স্থাপন করেছে। শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় পর্যন্ত যাচ্ছে না বলে বিদ্যালয়কেই শিক্ষার্থীদের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেওয়া-এ এক অভিনব প্রয়াস। কিন্তু তার পরেও পাওয়া যাচ্ছে না আশাপ্রদ ফল। এর পেছনের কারণ অনুসন্ধান করার জন্য বিভিন্ন কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমি আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে যতটুকু অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছি, তা এখানে তুলে ধরলাম, অন্যদের সঙ্গে মত বিনিময় করার জন্য।

বিদ্যালয় বললেই আমাদের মনের আয়নায় যে চিত্রটি ভেসে ওঠে, স্কুলবাড়ি, শ্রেণিকক্ষ, শিক্ষক-শিক্ষিকা, পাঠদান, পরীক্ষা ইত্যাদি। নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হওয়া মানে প্রথমদিন থেকেই পাঠ্যবই হাতে নিয়ে শ্রেণিকক্ষে পাঠদান, এটা বড় বেশি নিয়মতান্ত্রিক। নিয়মের জাঁতাকলে পড়ে শিশুমন বা বড়রাও হাঁপিয়ে ওঠে। সন্ধ্যাবেলা বাতি জ্বালাবার জন্য যেমন সলতে পাকানো ঠিক তেমনি বিশেষভাবে প্রথম পর্যায়ের যারা ছাত্র, সে প্রথম শ্রেণিই হোক বা ষষ্ঠ শ্রেণি, তাদের সঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের চাই নিবিড়, আত্মিক সম্পর্ক। শিক্ষক আর শিক্ষার্থীদের মধ্যে রয়েছে বিস্তর ব্যবধান। বিদ্যালয়-ছুটদের সমস্যা যেখানে বেশি, মানে গ্রামাঞ্চল বা শহরতলিতে, সেখানে এই সম্পর্কের ব্যবধানও অতি প্রকট। যারা শিক্ষকতা করেন, তারা সবাই কি বুকে হাত দিয়ে শপথ করে বলতে পারেন যে, শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বন্ধুতের সম্পর্ক গড়ে তোলা দরকার? অল্প কিছু সংখ্যক শিক্ষক-শিক্ষিকাকে বাদ দিলে বেশির ভাগের সঙ্গে ছাত্রছাত্রীদের দূরত্ব রয়েছে। সেখানে কাজ করে ভয়, ভীতি, অনাবশ্যক দুশ্চিন্তা যার ফলে শ্রেণিকক্ষে তারা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করে না। গণিতে ছাত্রদের করুণ অবস্থার কারণ নির্ণয় করার জন্য একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, গণিতের প্রতি ভয়ই তাদের অনগ্রসরতার মূল কারণ।

শিক্ষক-শিক্ষার্থী সম্পর্ক গঠনের জন্য কোনো কর্মসূচির কথা আমরা ভাবতে পারি কি? এমন কোনো কর্মসূচি নিলে হয় না? এটা কিন্তু খুব জরুরি। ভয়মুক্ত পরিবেশে যদি তাদের না ফেলা যায়, তাহলে শিক্ষার সুফল থেকে তারা তথা দেশ বঞ্চিত হবে। সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটানো, আমার মতে প্রথম পদক্ষেপ। আদর, ভালোবাসার উষ্ণতায় তাদেরকে মাতৃক্রোড়ের সুরক্ষা প্রদান করা একান্ত প্রয়োজন।

শিক্ষা মিশনের লক্ষ্য অর্জনে সবার জন্য ভর্তি নিশ্চিত করা আবশ্যক। কিন্তু ভর্তি করিয়েই ক্ষান্ত থাকা যায় না। তাদেরকে ধরে রাখাও একটি বিশেষ কাজ। তার জন্য শ্রেণিকক্ষের পাঠদান হওয়া চাই খুব আগ্রহ সৃষ্টিকারী এবং তা দেওয়া হোক নতুনত্বের মোড়কে। প্রথমেই বই থেকে পড়া না-ধরে প্রথম শ্রেণির বাচ্চাদের নানারকম ছড়া শেখানো যায়। সুন্দর সুন্দর গল্প বলে তাদের সঙ্গে যত তাড়াতাড়ি ভাব জমানো যায়, তার সঙ্গে যদি থাকে আদর আর দরদের মিশ্রণ, তাহলে বাচ্চারা বিদ্যালয়ে আসতে চাইবে না, তা কি বিশ্বাস করা যায়? অনেকেকই বলতে শুনি, ছাত্ররা কাজে চলে যায় বলেই বিদ্যালয়ে আসে না। আরে সেটা তো একটু বড়দের ক্ষেত্রে। সেই বড় ছাত্রগুলো যদি একদম প্রথম শ্রেণিতেই আগ্রহ উদ্দীপক পরিবেশ পায় এবং সেই পরিবেশের উপর গড়ে ওঠে দ্বিতীয় শ্রেণির ভিত, তারপর এভাবে তৃতীয়, চতুর্থ ইত্যাদি, তাহলে তারাই বিদ্যালয়ে আসার জন্য বায়না করবে। তাদের বাড়িতে ধরে রাখাই যাবে না। সবাই যে শুধু আর্থিক কারণেই বিদ্যালয় ছুট হয়, তা কিন্তু নয়। সব বিদ্যালয়ের পরিবেশ ছাত্রদের অনুকূল, সেটা জোর গলায় বলা যায় না। প্রথম প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের সমস্যা বহুবিধ। তারা নিজেরাই নানারকম মানসিক ক্ষুদ্রতার শিকার হয় এবং তারাই বেশি করে বিদ্যালয়-ছুট হয়। ঘরেও তারা শিক্ষা সহায়ক পরিবেশ পায় না। সেরকম ছাত্রছাত্রীদের জন্য আলাদা কোচিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে এবং তাদের কাছে অনুরূপ বার্তা পৌছাতে হবে যাতে তারা অনুভব করতে পারে যে, বিদ্যালয় তাদের নানা সমস্যা সমাধানে হাত বাড়িয়ে দেবে, বিদ্যালয় তাদের কথা ভাবে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটিকেও তাদের নির্দিষ্ট কাজগুলো সুচারুভাবে সম্পাদন করতে হবে। অনেককে বলতে শোনা যায় যে, তারা মিটিং-এ আসেন না বা অভিভাবকদের ডাকলেও তারা আসতে চান না। তারা আসেন না ঠিকই কিন্তু তাদের সন্তাননের পরীক্ষায় অসফল হলে নানারকম ঝামেলার সৃস্টি করেন তারাই। তারা যদি নিয়মিত বিদ্যালয়ের মিটিংগুলোতে আসতেন, তাহলে হয়তো সমস্যা এড়ানো যেত। অভিভাবকদের সঙ্গে খুব নিবিড়ভাবে মিশলে বোঝা যায়, পিতামাতা বা অভিভাবকদেরও আছে বিদ্যালয় সম্পর্কে ভীতি, আছে নানারকম কুণ্ঠাবোধ, হীনম্মন্যতাবোধ। প্রত্যেক শিক্ষক-শিক্ষিকাদের উচিত নিজেদের আত্মগৌরব ভুলে গিয়ে সন্তানতুল্য ছাত্রছাত্রীদের পিতামাতা, অভিভাবকদের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোলা। বিদ্যালয়ের প্রতি বিকর্ষণের জায়গায় আকর্ষণ সৃষ্টি করা।
প্রতিটি বিদ্যালয়ে চাই সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলির স্ফূরণ ঘটানো। সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলির সে কী অসীম ক্ষমতা রয়েছে তা শিক্ষক মাত্রই স্বীকার করবেন। শিক্ষাবিদ ওসমান গণীর যে বিখ্যাত উক্তি রয়েছে, Education is the mantifestation of perfection alreadz in man. শিশুর ভেতরের অন্তর্নিহিত গুণাবলির বিকাশ ঘটানোই শিক্ষার মূল উদ্দেশ্য এবং একে রূপ দিতে গেলে তার ভিতরের প্রতিভাকে টেনে বের করতে গেলে একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলি। একটি বীজ বপন করলে তার চারাগাছে রূপান্তর থেকে শুরু করে মহিরুহ হয়ে ওঠা পর্যন্ত যে যে বিষয় অত্যাবশ্যক, সেগুলো হল পানি, উপযুক্ত মাটি, বাতাস, পরিচর্যা ইত্যাদি। আমাদের পাঠ্যপুস্তকগুলোকেও হজম করে জ্ঞানে সঞ্চারিত করতে গেলে চাই সেরকম পরিচর্যা যা সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলির দ্বারা সম্পন্ন হতে পারে। শিশুর মধ্যে আত্মবিশ্বাস, শৃঙ্খলাপরায়ণতা, সহনশীলতা, নীতিবোধ, দায়বদ্ধতা, তার দৃষ্টিভঙ্গির রূপায়ণ শুধু পরীক্ষার পড়া শেখা আর খাতায় তা উগড়ে দেওয়ার মাধ্যমেই সম্পন্ন হয় না। এর জন্য চাই দীর্ঘ অনুশীলন। সবার সামনে দাঁড়িয়ে একটি ছেলে বা মেয়ে যখন কোনো একটি গান গাইবে, বক্তৃতা বা আবৃত্তি করবে, সবার প্রশংসায় তা অপার্থিব আনন্দ নিয়ে তার কাছে ধরা দেবে। শ্রেণিকক্ষে যে ছাত্র বা ছাত্রী পিছিয়ে রয়েছে, তাকে সবার সামনে এনে দাঁড় করিয়ে তাকে দিয়ে কিছু করালে তা জাদুমন্ত্রের মতো কাজ করে। অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, হাজার দুষ্ট প্রকৃতির ছেলেমেয়ে আদর ভালোবাসার কাছেই হার মানে, শাস্তি দিয়ে যেটা কোনোদিনই সম্ভব নয়। বিদ্যালয়ে পড়াশোনা ভালোভাবে বজায় রেখেও করা যায় বারো মাসে তেরো পার্বণ। সকালবেলায় সম্মেলনকে যদি একটু ভিন্ন আঙ্গিকে উপস্থাপন করা যায়, তবে সুদূরপ্রসারী ফল ফলতে পারে।

ছোট্ট ছোট্ট অনুষ্ঠান, যেমন এক ঘণ্টার একটা সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের আয়োজন কখনো করা হলো, আবার কখনো ক্যুইজ বা ছোট্ট কোনো নাটক, বড় ক্লাসের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতা, আকস্মিক বক্তৃতা- এসবের মাধ্যমে মানবসম্পদ তৈরি করার অনন্য নজিরের অভাব নেই। বিদ্যালয়ের প্রতি আকর্ষণ বাড়াতে গেলে ছাত্রছাত্রীদের যে-কোনো কাজ, সেটা ছোটই হোক অথবা বড়, সে কাজকে প্রশংসা করা উচিত। শিক্ষক-শিক্ষিকাদের কাছ থেকে একটা স্বীকৃতি পাওয়া, তাদের প্রশংসা, আদর একটা শিশুমনে কতখানি প্রভাব ফেলতে পারে, তা শৈশবের স্মৃতি যাদের কাছে এখনও অম্লান হয়ে আছে, তারা তা অস্বীকার করতে পারবেন না। বিদ্যালয় যদি সত্যি অর্থেই আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়, যদি শিশুরা সেখানে আনন্দ পায়, পায় প্রাণভরে নিশ্বাস নেবার অফুরন্ত অক্সিজেন, তাহলে তারা স্কুলছুট হবে, এটা বিশ্বাস করা যায় না। দারিদ্র শিক্ষার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না, যদি আমরা এগুলো অনুসরণ করি।

শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের পদ্ধতির মধ্যেও আনা চাই ব্যাপক পরিবর্তন। অঙ্কের কথাই ধরা যাক না কেন। অংক বিষয়টির প্রতি প্রথমেই দরকার অহেতুক ভয় দূর করা। সেটা না-করে প্রথমেই আমরা যোগ, বিয়োগ, গুণ, ভাগ, লসাগু, গসাগু, গুণিতক, গুণনীয়ক ইত্যাদি কতগুলো শব্দ শুনিয়ে শিক্ষার্থীদের ভারাক্রান্ত করি। অঙ্কের ব্যাপারে প্রথমেই দরকার আমাদের প্রতিদিনকার অভিজ্ঞতার সঙ্গে, বাস্তবের নিরিখে বোঝানো। সংখ্যার সঙ্গে সংখ্যা মিললে বেড়ে যায়, সরিয়ে নিয়ে গেলে কমে যায়, সেটা অগণিত উদাহরণের সাহায্যে, দৈনন্দিন জীবনে যেগুলো সব সময়ই প্রযোজ্য, সেগুলো নিয়ে যদি অঙ্কের ধারণার ভিত তৈরি করা যায়, তাহলে অঙ্ক বিষয়টা অনেকের কাছে সহজবোধ্য হবে। আসলে শিশুদের অঙ্ক শেখানোর সময় প্রথম থেকেই একটা বিমূর্ত চিন্তাধারার মাধ্যমে সেটা শুরু করা হয়। আর সেখানেই লাগে বিপত্তি। অথচ দিন শুরু হবার পর থেকেই আমাদের কিন্তু অংকের হিসাব শুরু হয়ে যায়। সময়, পরিমাণ, দূরত্ব, টাকা-পয়সা সংক্রান্ত অংক প্রতিদিনকার উদাহরণ থেকে বোঝালে সেটা বোধগম্যও হয় তাড়াতাড়ি এবং মনে থাকবে চিরদিন। কারণ শিক্ষা সহায়ক উপকরণের মধ্যে দৃশ্যমান উপকরণের ক্ষমতা অত্যধিক তা পড়–য়াদের একেবারে অস্থিমজ্জার মধ্যে ঢুকে গিয়ে ডালপালা বিস্তার করে। তবে একটা বিষয় অতিব প্রয়োজনীয়। ৪র্থ বা ৫ম শ্রেণীতেই ছাত্র-ছাত্রীদের ২০ পর্যন্ত নামতা শিখানো দরকার, যা অংক করতে বা চলার পথে খুবই কাজে লাগে।

ইংরেজি শিক্ষার ক্ষেত্রে তাই। বিভিন্ন শব্দ চেনাবার সময় আমাদের হাতের কাছে, শ্রেণিকক্ষের ভেতরেই অনেক জিনিস আছে, যেগুলোর নাম শেখাতে বাংলা ভাষার দরকার হয় না। চেয়ার, টেবিল, বুক, চক, ডাস্টার, ব্ল্যাকবোর্ড রুম, রুফ, স্টুডেন্ট, চার্ট, পেন, পেনসিল ইত্যাদি অনেক শব্দ আমরা ঘরে বসেই পেয়ে যাই। নাউন বা বিশেষ্য এভাবে শ্রেণিকক্ষের বাইরেও প্লেগ্রাউন্ড থেকে শুরু করে অজ¯্র শব্দ আছে, যা চিনতে কোনো অসুবিধাই হয় না। অ্যডজেকটিভ শেখাতে গিয়ে এই শ্রেণিকক্ষের টল/শর্ট, হাই/লো, এবাভ/আন্ডার, ব্ল্যাক/হোয়াইট, লং/শট, ক্লিন/ডার্টি ইত্যাদি অনেক শব্দ শিখিয়ে ফেলা যায় একদম বিনা আয়াসে। সহপাঠীদের সামনে একজন ছাত্র এবং একজন ছাত্রীকে দাঁড় করিয়ে, যাদের মধ্যে একজন বেঁটে এবং একজন লম্বা এমন দু’জনকে বয়/গার্ল, টল/শর্ট চেনানোই যায়। বিদ্যালয়ের কাছের এবং দুরের কোনো জায়গার উদাহরণ দিয়ে নিয়ার এবং ডিস্ট্যান্ট শব্দ বোঝাতে পারি। এভাবে ইংরেজিতেও পরিচিত জায়গা থেকে তাদের অপরিচিতের দিকে, জানা থেকে অজানায় সহজ থেকে কঠিন এবং মূর্ত এবং বিমূর্তর নিয়ে গেলে শেখাটা কতই না আনন্দদায়ক হয়।

আমাদের নেই অনেক কিছু, কিন্তু আছে বিশাল হৃদয়। হৃদয়ের অবাধ, অনন্ত, প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর, নব নব উদ্ভাবনী ক্ষমতা দিয়ে শিশুদের শেখার জগৎটাকে করে তুলতে পারি বৈচিত্র্যময়, বর্ণময়। উৎসাহসঞ্চার, প্রশংসা, আগ্রহ আর অভিনবত্বের মেলবন্ধনে, ভালোবাসা আর আদরের গভীর বন্ধনে যদি আমরা পড়–য়াদের ক্রোড়ে তুলে নিতে পারি, তাহলে বিদ্যালয়-ছুটদের সমস্যা তলানিতে এসে ঠেকবে, এ কথা হলফ করেই বলা যায়।

Check Also

নৈতিক অবক্ষয় থেকে প্রজন্মকে রক্ষা করতে হবে

রায়হান আহমেদ তপাদার বর্তমান বিশ্বে বিজ্ঞানের অভাবনীয় উন্নতির কারণে আজ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যথেষ্ট …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x