Home / সারা বাংলা / প্যানেল মেয়র শাহবুদ্দীন মন্টু’র বিরুদ্ধে রাস্তার নামে জমি দখলের অভিযোগ

প্যানেল মেয়র শাহবুদ্দীন মন্টু’র বিরুদ্ধে রাস্তার নামে জমি দখলের অভিযোগ

জাহিদ হাসান, শার্শা প্রতিনিধি : বেনাপোল পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহবুদ্দীন মন্টু’র বিরুদ্ধে তার নিকটতম আত্মীয়’র পক্ষে  কাগজপুকুর সরকারি কোলনীর রাস্তা করার নামে জোর পূর্বক জমি দখল সহ স্থাপনা ভাংচুরের অভিযোগ। ইউএনও’র কাছে অভিযোগ অসহায় দিনমুজুরের।
বেনাপোল পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ড কাগজপুকুর কোলনীর বাসিন্দা ভুক্তভোগী জানান, বিগত ৪০ বছর আগে সরকারি কলোনিতে ইয়াকুব মিস্ত্রির নিকট থেকে ৩ শতক জমি ক্রয় করে বর্তমান সেখানে তারা সহ ১০ টি পরিবার বসবাস করছেন। গত ২০ দিন আগে কোন নোটিশ ছাড়ায় বেনাপোল পৌরসভার পেনেল মেয়র শাহবুদ্দীন মন্টু আমার বসত বাড়িতে এসে আম্ফানে ভেঙ্গে পড়া নির্মনাধীন ঘর করতে বাঁধা প্রদান করেন। কেন কি কারনে ঘর করতে দেওয়া হবে না জানতে চাইলে বলেন ঘরের এই জায়গা দিয়ে পৌরসভার রাস্তা হবে। আমি বাঁধা প্রদান করলে প্যানেল মেয়রের সাথে থাকা দু’জন ও আমার প্রতিবেশি হুকুম আলীর ছেলে মিন্টু কোদাল দিয়ে আমার নির্মানাধীন ঘর ভেঙ্গে ফেলে এবং আমাকে মারতে আসে। কোন উপায় না পেয়ে আমি বেনাপোল পোর্ট থানায় হাজির হয়ে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি এবং শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজার নিকটও অভিযোগ দিয়েছি।
কাগজপকুর কোলনীর বাসিন্দা শাহাজান আলী বলেন, বেনাপোল পৌরসভাধীন ৪ নং কাগজপুকুর ওয়ার্ডে সরকারি কোলনীতে গরীব খেটে খাওয়া দিনমজুর ৩০০ পরিবারের বসবাস উক্ত কোলনীতে যাতায়াতের জন্য ৭ থেকে ৮ টি রাস্তা আছে তবে কোন রাস্তায় শেষ পর্যন্ত যায়নি। মানিক খাঁয়ের জমির বিষয়ে বলেন, তিনি একজন দিনমজুর খেটে খাওয়া মানুষ মাত্র ৩ শতক জমির মধ্যে ১০ টি পরিবার বসবাস করে সেখান থেকে যদি আবার পৌর কতৃপক্ষ ৮ ফুট রাস্তার জায়গা কেড়ে নেন তাহলে তার আর বসবাস করার জন্য জমিই থাকবে না। তাছাড়া যদি রাস্তা থেকেই থাকে তাহলে কোলনীর সব আটকে পড়া রাস্তা খুলে দিতে হবে।
কাগজপুকুর কোলনীর আরেক বাসিন্দা রহিমা খাতুন জানান, মানিক খাঁয়ের বাড়ির পাশের বাড়ি আক্তারুজ্জামান খোকার বাড়ি। তিনি পৌরসভার পেনেল মেয়র মন্টু’র আত্মীয় বিধায় পৌরসভার রাস্তার নামে জোর করে জমি দখল করার চেষ্টা করছেন। কারন আক্তারুজ্জামান খোকার বাড়ির পেছনে কিছু জায়গা আছে সেখানে রাস্তা নেই বিধায় যাতাযাত করা যায়না। রাস্তা করার জন্য মানিক খাঁয়ের বাড়ির উপর দিয়ে পাঁয়তারা চালাচ্ছেন। এছাড়া অসহায় অতি দরিদ্র দিনমজুর মানিক খাঁকে উচ্ছেদ করতে বিভিন্ন প্রকার সড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন খোকা। তার নির্মানাধীন ভাংচুরের ২দিন পর খোকার বাড়িতে আগুন দিয়ে মানিক খাঁয়ের পরিবারের উপর থানায় অভিযোগ করেন।
এ বিষয়ে মানিক খাঁয়ের প্রতিবেশি আক্তারুজ্জামান খোকার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ঈদের পরে দু’পক্ষ বসে বিষয়টি মিটিয়ে নিব। প্যানেল মেয়র কেমন আত্মীয় হয় জানতে চাইলে তিনি বলেন উনি আমার শশুর বাড়ীর আত্মীয়।
ভাংচুর ও রাস্তার বিষয়ে পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহাবুদ্দীন মন্টু’র কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার উপর ভাংচুরের আনিত অভিযোগটি মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি কাগজপুকুর কোলনীর রাস্তার বিষয়টি দেখার জন্য গিয়েছি এবং দু’পক্ষকে মিমাংশার জন্য বলেছি। ঈদের পরে ওয়ার্ডবাসীদের নিয়ে বসে বিষয়টি সমাধান করা হবে। আমার নাম ভাংঙ্গিয়ে যদি কেউ অপকর্ম করে তার জন্য আমি দ্বায়ী নই।
এ বিষয়ে কাগজপুকুর ৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ আমিরুল ইসলামের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, মানিক খাঁয়ের বাড়ি ভাংচুর হয়েছে বিষটি লোকমুখে শুনেছি। তিনি বলেন তার ওয়ার্ডের সরকারি কোলনীতে প্রায় ৩০০ পরিবারের বসবাস উক্ত কোলনীতে ৭ টি রাস্তা আছে তবে কোন রাস্তায় শেষ পর্যন্ত যেতে পারেনি যদি সব রাস্তা শেষ পর্যন্ত যায় তাহলে মানিক খাঁয়ের টাও যাবে। তা না হলে আমার জানা মতে তার দেড় শতক জমি রাস্তার জন্য নিলে আর অবশিষ্ট কি থাকবে। পৌরসভা হওয়ার পূর্বে থেকে এলোমেলো ভাবে কোলনীতে হত দরিদ্র ও দিন মজুর শ্রেনীর লোকের বসবাস। এ ছাড়া করোও ব্যাক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য একটি দরিদ্র পরিবারের উপর জুলুম করা অন্যায় হবে।
এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্টথানার পুলিশ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম জানান, কাগজপকুর কোলনীর জমি দখলের চেষ্টা ও স্থাপনা ভাংঙ্গার অভিযোগের ভিত্তিতে বেনাপোল কাগজপুকুর কোলনীর মানিক খাঁয়ের বাড়ি পরিদর্শন করেছি। বিষয়টি যেহেতু পৌরসভার, সে জন্য সবাইকে নিয়ে ঈদের পরে দুই পক্ষকে মিটিয়ে দেবার চেষ্টা করবো।

Check Also

খুলনা করোনা হাসপাতালে আরও ৭জনের মৃত্যু

খুলনা   প্রতিনিধি :   খুলনা করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x