Home / শিক্ষা / আবেদন শেষে ৩০ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের ফল

আবেদন শেষে ৩০ দিনের মধ্যে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের ফল

ঢাকার ডাক ডেস্ক  :     বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৪ হাজার ৩০৪টি শূন্য পদে তৃতীয় ধাপে শিক্ষক নিয়োগ দিতে অনলাইন আবেদন শুরু হয়েছে। আগামী ৩০ এপ্রিল এ আবেদন কার্যক্রম শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। আবেদন শেষ হলে পরবর্তী ৩০ দিন বা এক মাসের মধ্যেই নির্বাচিত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। মোবাইল এসএমএস-এর মাধ্যমে নির্বাচিত প্রার্থীদের ফল জানিয়ে দেয়া হবে

বুধবার (২১ এপ্রিল) বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ মার্চ শিক্ষক নিয়োগে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। আর ৪ এপ্রিল থেকে শুরু আবেদন প্রক্রিয়া। গতকাল মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) পর্যন্ত ১৭ দিনে ৪৩ লাখ ৭০ হাজার আবেদন এসেছে। এ বাবদ এনটিআরসিএ ৪৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা আয় করেছে। আগামী ৩০ এপ্রিল রাত ১২ পর্যন্ত আবেদন কার্যক্রম চলবে। আবেদন শেষ হয়ে একমাসের মধ্যেই ফল প্রকাশ করা হবে।

নির্বাচিত প্রার্থীদের মোবাইল এসএমএস-এর মাধ্যমে ফলাফল জানিয়ে দেয়া হবে। ফল পাওয়ার পর ১৫ দিনের মধ্যে প্রার্থীকে নির্ধারিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যোগদান করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রথম প্রার্থী প্রতিষ্ঠানে যোগদানে ব্যর্থ হলে পরবর্তী অপেক্ষমান ব্যক্তি যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। পরবর্তী সাত দিনের মধ্যে তাকে (অপেক্ষমান থাকা) ওই প্রতিষ্ঠানে যোগদান করতে বলা হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে ৫৪ হাজার ৩০৪টি পদের মধ্যে স্কুলে ১৯ হাজার ৮৫০টি, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১৯ হাজার ১৫৪টি, কলেজে ৬ হাজার ৯৮৮টি শূন্য পদ রয়েছে। তবে আদালতের রায়ের প্রেক্ষিতে দুই হাজার ১৪৬টি পদ বাদ দিয়ে বাকি পদগুলোতে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

জানা গেছে, এনটিআরসিএর মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের জন্য বছরে প্রায় ৯৯৬ কোটি টাকা এমপিও সুবিধা বাবদ বরাদ্দ দেয়া হবে। সকল প্রার্থী এক সঙ্গে এপিওভুক্ত করা হবে না। পর্যায়ক্রমে এ সুবিধার আওতায় আনা হবে।

এদিকে সারাদেশে নতুন করে আরও ২০ হাজার শিক্ষক পদ শূন্য হয়েছে। তৃতীয় ধাপে নিয়োগ কার্যক্রম শেষে পরবর্তী তিন থেকে চার মাস পরে চতুর্থ ধাপে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করবে এনটিআরসিএ।

জানতে চাইলে এনটিআরসিএ-এর চেয়ারম্যান আশরাফ উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, তৃতীয় ধাপে নিয়োগ পেতে এ পর্যন্ত সাড়ে ৪৩ লাখের বেশি আবেদন জমা হয়েছে। আবেদন শেষে পরবর্তী এক মাসের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করা হবে। আগামী তিন-চার মাস পর চতুর্থ ধাপে নিয়োগ কার্যক্রম শুরু করা হবে। ইতোমধ্যে নতুন করে শূন্য পদের তালিকা সংগ্রহ কাজ শুরু করা হয়েছে।

Check Also

আরও পেছাচ্ছে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

ঢাকার ডাক ডেস্ক  :     করোনার কারণে এক বছরের বেশি সময় ধরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। চলতি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *