Home / মহানগর / ভাষাসৈনিক একেএম শামসুজ্জোহার ৩৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

ভাষাসৈনিক একেএম শামসুজ্জোহার ৩৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নারায়ণগঞ্জ  প্রতিনিধি :   ২০ ফেব্রুয়ারি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ট সহচর, মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক, ভাষাসৈনিক ও স্বাধীনতা পদকে (মরণোত্তর) ভূষিত প্রয়াত জননেতা এ কে এম শামসুজ্জোহার ৩৪তম মৃত্যুবার্ষিকী।

তিনি ছিলেন একাধারে আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, গণ পরিষদের সদস্য ও স্বাধীনতা পরবর্তী জাতীয় সংসদ সদস্য।

মরহুম এ কে এম শামসুজ্জোহা এদেশের অন্যতম ঐহিত্যবাহী ওসমান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মরহুম জননেতা খান সাহেব ওসমান আলীও ছিলেন একজন ভাষা সৈনিক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং সাবেক এমএনএ।

ঐতিহ্যবাহী এই পরিবারের আদি নিবাস নারায়ণগঞ্জের ‘বায়তুল আমান ভবন’ আজও কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িঁয়ে আছে। এখানে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার বীজ বপন করা হয়েছিল। মহান ভাষা আন্দোলনের সময় এই ভবনে তৎকালীন পুলিশ প্রবেশ করে ওসমান পরিবারের সদস্যদের ওপর অকথ্য নির্যাতন চালিয়েছিল।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আত্মজীবনীতেও উঠে এসেছে ভাষা আন্দোলনে এই বায়তুল আমান ভবন ও ওসমান পরিবারের ত্যাগের কথা। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতের শরণার্থী শিবিরে মরহুম শামসুজ্জোহা ‘ত্রানবন্ধু’ নামে পরিচিত ছিলেন।

প্রয়াত এই জননেতা সর্বপ্রথম ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর হাইকোর্টে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন এবং বাংলাদেশ বেতারের মাধ্যমে বিজয়ের বার্তা প্রচার করেন। ওই দিন অপরাহ্নে বঙ্গমাতা ফজিলাতুন্নেসা, বঙ্গবন্ধু কন্যা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ সেনাদের হাতে আটক বঙ্গবন্ধু পরিবারকে মুক্ত করতে গিয়ে পাকসেনা কর্তৃক গুলিবিদ্ধ হন।

প্রয়াত শামসুজ্জোহার স্ত্রী ও রত্নগর্ভা নাগিনা জোহাও ছিলেন ভাষাসৈনিক। তার বড় ছেলে প্রয়াত জননেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য নাসিম ওসমান বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিশোধ নিতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নতুন বউকে রেখেই প্রতিরোধ যুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন।

এরপর শামসুজ্জোহাকে গ্রেফতার করা হয় এবং ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর জাতীয় চার নেতার হত্যাযজ্ঞের সময়। তিনি ও শহীদ জাতীয় নেতা ক্যাপ্টেন মনসুর আলী একই সেলে বন্দী ছিলেন। শামসুজ্জোহা ছিলেন ওই কলঙ্কিত ইতিহাসের অন্যতম স্বাক্ষী।

মহান মুক্তিযুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় প্রয়াত শামসুজ্জোহাকে ২০১২ সালে স্বাধীনতা পদকে (মরণোত্তর) ভূষিত করা হয়।

এদিকে দিনটি উপলক্ষে শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) মরহুমের পরিবার ও নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন দিনভর কর্মসূচি পালন করবে।

পরিবারের পক্ষ হতে শনিবার সকাল ১১টায় বন্দরের মুছাপুরস্থ শামসুজ্জোহা বি এম উচ্চ বিদ্যালয়ে এবং বাদ আছর নারায়ণগঞ্জ মাসদাইর কবরস্থান জামে মসজিদে মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।

Check Also

তাবলিগ জামাতে গিয়ে প্রাণ হারাল শিশু

নারায়ণগঞ্জ  প্রতিনিধি :   নারায়ণগঞ্জে তাবলিগ জামাতে এসে পুকুরে ডুবে মো. শাওন (১২) নামের এক শিশুর মৃত্যু …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *