Home / খেলাধুলা / পগবার গোলে ৮ বছর পর শীর্ষে ম্যান ইউ

পগবার গোলে ৮ বছর পর শীর্ষে ম্যান ইউ

স্পোর্টস ডেস্ক  :   চলতি মৌসুমের শুরু থেকেই আশা জাগানিয়া ফুটবল খেলে আসছে ইংল্যান্ডের ঐতিহ্যবাহী ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। এর ধারাবাহিকতা তারা ধরে রেখেছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ১৭ রাউন্ড পরেও। যার সুবাদে প্রায় ৮ বছর পর ১৭ ম্যাচ শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানে বসেছে তারা।

মঙ্গলবার রাতে তুলনামূলক দুর্বল দল বার্নলির বিপক্ষে জয়টা খুব সহজ ছিল না ম্যান ইউর জন্য। প্রতিপক্ষের মাঠে খেলতে গিয়ে রীতিমতো লড়াই করে পূর্ণ ৩ পয়েন্ট অর্জন করতে হয়েছে ওলে গানার সুলশারের দলকে। জয়সূচক গোলটি করেছেন ফ্রান্সের মিডফিল্ডার পল পগবা।

ম্যাচে ম্যান ইউর ওপর তেমন কোনো চাপ প্রয়োগ করতে পারেনি বার্নলি। পুরো ম্যাচের ৯০ মিনিটে অন্তত ১১ বার তারা আক্রমণে উঠলেও, লক্ষ্য বরাবর শট করতে পারেনি একটিও। অন্যদিকে গোল বরাবর গোটা সাতেক শট নিয়ে একবার মাত্র সফল হয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

জয়সূচক গোলটি পেতে তাদের অপেক্ষা করতে হয়েছে ম্যাচের ৭১ মিনিট পর্যন্ত। একের পর এক আক্রমণে যখন মিলছিল না সফলতা, তখনই দলকে আনন্দে ভাসান পগবা। মার্কাস র‍্যাশফোর্ড ডান দিক থেকে ক্রস বাড়ান পগবার উদ্দেশ্যে, সেটি ধরে দারুণ এক ভলিতে জালের ঠিকানা খুঁজে নেন এই ফরাসি মিডফিল্ডার।

এই গোলেই নিশ্চিত হয়ে যায় পয়েন্ট টেবিলে ম্যান ইউর শীর্ষস্থান। লিগের ১৭ রাউন্ড শেষে সবশেষ ২০১২-১৩ সালে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে ছিল রেড ডেভিলরা। সেবারই শেষবার ইপিএল চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তারা। এর ৮ বছর পর আবার ১৭ রাউন্ড শেষে টেবিলের শীর্ষে উঠল ম্যান ইউ।

লিগের ১৭ ম্যাচ শেষে ১১ জয় ও ৩ ড্রয়ে ৩৬ পয়েন্ট রয়েছে ম্যান ইউর ঝুলিতে। সমান ম্যাচে ৯ জয় ও ৬ ড্রয়ে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে লিভারপুল।

পরের তিনটি স্থানে যথাক্রমে লিস্টার সিটি (৩২), এভারটন (৩২) ও টটেনহ্যাম হটস্পার (২৯)। টটেনহ্যাম খেলেছে ১৬ ম্যাচ। লিস্টার ও এভারটনের ম্যাচ সংখ্যা ১৭টি।

টেবিলের ছয় নম্বরে থাকলেও, ওপরের পাঁচ দলের বড় মাথা ব্যথার কারণ ম্যানচেস্টার সিটি। কেননা ১৫ ম্যাচে তাদের পয়েন্ট ২৯। ফলে পরের দুই ম্যাচ জিতলে ১৭ ম্যাচে তাদের হয়ে যাবে ৩৫ পয়েন্ট।

Check Also

ব্যাটে-বলে হতাশ করলেন সাকিব

স্পোর্টস ডেস্ক  :   ভক্ত ও সমর্থকরা অধীর অপেক্ষায় ছিলেন, আশায় উন্মুখ হয়েও ছিলেন। কিন্তু কঠিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *