Home / ফটো গ্যালারি / ফ্রিজে ডিম রাখলে কী হয়?

ফ্রিজে ডিম রাখলে কী হয়?

ফ্রিজে ডিম রাখা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক বলেই দাবি গবেষকদের।

ফ্রিজে ডিম রাখা স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকারক বলেই দাবি গবেষকদের।

গবেষকদের মতে, ফ্রিজের তাপমাত্রা শূন্যরও অনেক নীচে থাকে বলে খাবার রাখা নিরাপদ, সহজে নষ্ট হয়ে যায় না। কিন্তু ফ্রিজে ডিম রাখলে তার মধ্যে এক ধরনের ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া জন্ম নেয়।

গবেষকদের মতে, ফ্রিজের তাপমাত্রা শূন্যরও অনেক নীচে থাকে বলে খাবার রাখা নিরাপদ, সহজে নষ্ট হয়ে যায় না। কিন্তু ফ্রিজে ডিম রাখলে তার মধ্যে এক ধরনের ক্ষতিকারক ব্যাকটিরিয়া জন্ম নেয়।

আমরা রান্না করার সময় সাধারণত ফ্রিজ থেকে ডিম বের করে সরাসরিই ব্যবহার করে ফেলি! তাই ডিমে জন্ম নেওয়া ব্যাকটিরিয়া জীবিত অবস্থায় থাকে এবং খাদ্যে বিষক্রিয়া ও নানা রকম সংক্রমণ ঘটতে পারে।

আমরা রান্না করার সময় সাধারণত ফ্রিজ থেকে ডিম বের করে সরাসরিই ব্যবহার করে ফেলি! তাই ডিমে জন্ম নেওয়া ব্যাকটিরিয়া জীবিত অবস্থায় থাকে এবং খাদ্যে বিষক্রিয়া ও নানা রকম সংক্রমণ ঘটতে পারে।

উল্লেখ্য, ফ্রিজে ডিম রাখার কায়দা বিশ্বকে শিখিয়েছিল আমেরিকা। ফ্রিজে ডিম রাখলে তা বেশি দিন ভালো থাকে। বাইরে ডিম রাখলে কয়েকদিনের মধ্যেই খারাপ হয়ে যায়। তারপর থেকেই গোটা দুনিয়া এই নিয়মে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে, এমন কী ফ্রিজের সব-মডেলেই ডিম রাখার জন্য আলাদা তাক থাকে।

উল্লেখ্য, ফ্রিজে ডিম রাখার কায়দা বিশ্বকে শিখিয়েছিল আমেরিকা। ফ্রিজে ডিম রাখলে তা বেশি দিন ভালো থাকে। বাইরে ডিম রাখলে কয়েকদিনের মধ্যেই খারাপ হয়ে যায়। তারপর থেকেই গোটা দুনিয়া এই নিয়মে অভ্যস্ত হয়ে গিয়েছে, এমন কী ফ্রিজের সব-মডেলেই ডিম রাখার জন্য আলাদা তাক থাকে।

বাইরে বেশিদিন ডিম রাখলে খারাপ হয়ে যায়, এদিকে ফ্রিজেও ডিম রাখা নিরাপদ নয়, জন্ম নেয় ক্ষতিকারক ব্যকটিরিয়া! তাহলে উপায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেকটা ডিম লাগবে সেকটা ডিমই কিনুন এবং রান্না করে ফেলুন। অযথা বেশি ডিম কিনে জমিয়ে রাখবেন না।

বাইরে বেশিদিন ডিম রাখলে খারাপ হয়ে যায়, এদিকে ফ্রিজেও ডিম রাখা নিরাপদ নয়, জন্ম নেয় ক্ষতিকারক ব্যকটিরিয়া! তাহলে উপায়? বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেকটা ডিম লাগবে সেকটা ডিমই কিনুন এবং রান্না করে ফেলুন। অযথা বেশি ডিম কিনে জমিয়ে রাখবেন না।

Check Also

কোন রঙের আপেল স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী?

ভিটামিন সি, ভিটামিন এ ও আয়রনে ভরপুর আপেল, যা যে কোনো বয়সেই খেতে বলেন চিকিৎসকরা। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *