Home / ফটো গ্যালারি / যে ৯টি স্বাস্থ্যকর বেশি খেলে মহাবিপদ

যে ৯টি স্বাস্থ্যকর বেশি খেলে মহাবিপদ

গাজর: আপনি জানেন কি, গাজর বেশি খেলে শরীরে বিটা ক্যারোটিন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। বিটা কেরোটিন শরীরে বেড়ে গেলে ত্বক ফ্যাকাসে হয়ে যায়। তখন ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

গাজর: আপনি জানেন কি, গাজর বেশি খেলে শরীরে বিটা ক্যারোটিন বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। বিটা কেরোটিন শরীরে বেড়ে গেলে ত্বক ফ্যাকাসে হয়ে যায়। তখন ত্বক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

কফি: বেশি কফি খেলে স্নায়ুর ওপর চাপ বাড়ে। এটি ঘুমের সমস্যা তৈরি করে। বুকের ধড়ফড় ভাব বাড়িয়ে দেয়। তাই বেশি কফি না খাওয়ার পরামর্শই দেন গবেষকরা।

কফি: বেশি কফি খেলে স্নায়ুর ওপর চাপ বাড়ে। এটি ঘুমের সমস্যা তৈরি করে। বুকের ধড়ফড় ভাব বাড়িয়ে দেয়। তাই বেশি কফি না খাওয়ার পরামর্শই দেন গবেষকরা।

গ্রিন টি: বেশি গ্রিন টি খেলে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। বাড়িয়ে তুলতে পারে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও।

গ্রিন টি: বেশি গ্রিন টি খেলে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে। বাড়িয়ে তুলতে পারে কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাও।

কলা: কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে। দেহে পটাশিয়ামের আধিক্য হলে হার্ট ও নার্ভের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

কলা: কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম থাকে। দেহে পটাশিয়ামের আধিক্য হলে হার্ট ও নার্ভের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

পালং শাক: পালং শাকে অক্সালেট থাকে। যা কিডনিতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

পালং শাক: পালং শাকে অক্সালেট থাকে। যা কিডনিতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়।

সয়াবিন: বেশি সয়াবিন খেলে দেহে আয়রনের ঘাটতি দেখা দেয়।

সয়াবিন: বেশি সয়াবিন খেলে দেহে আয়রনের ঘাটতি দেখা দেয়।

লিভার: মুরগি বা খাসির লিভার খেতে আপনি ভালবাসেন? বেশি লিভার খেলেও হতে পারে সমস্যা। শরীরে অতিরিক্ত পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ এবং তামা থাকে। এগুলো শরীরে বেশি হয়ে গেলে হাড় ভঙ্গুর হওয়ার সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

লিভার: মুরগি বা খাসির লিভার খেতে আপনি ভালবাসেন? বেশি লিভার খেলেও হতে পারে সমস্যা। শরীরে অতিরিক্ত পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ এবং তামা থাকে। এগুলো শরীরে বেশি হয়ে গেলে হাড় ভঙ্গুর হওয়ার সমস্যা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।

টুনা মাছ: বিশেষজ্ঞরা বলেন, বেশি পরিমাণ টুনা মাছ খাওয়া শিশুর বৃদ্ধি কমিয়ে দিতে পারে এবং দৃষ্টিশক্তির সমস্যা তৈরি করে। তাই যারা বেশি টুনা মাছ খান, তাদের সপ্তাহে এক দিন টুনা মাছ খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

টুনা মাছ: বিশেষজ্ঞরা বলেন, বেশি পরিমাণ টুনা মাছ খাওয়া শিশুর বৃদ্ধি কমিয়ে দিতে পারে এবং দৃষ্টিশক্তির সমস্যা তৈরি করে। তাই যারা বেশি টুনা মাছ খান, তাদের সপ্তাহে এক দিন টুনা মাছ খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

দারুচিনি: দারুচিনির মধ্যে রয়েছে কিউমারিন নামের একটি রাসায়নিক পদার্থ। এটি শরীরে বেশি গেলে ক্যানসারের আশঙ্কা থাকে। এটি লিভারে বিষ (টক্সিন) তৈরি করতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, দিনে ২ গ্রাম দারুচিনি খাওয়া যেতে পারে।

দারুচিনি: দারুচিনির মধ্যে রয়েছে কিউমারিন নামের একটি রাসায়নিক পদার্থ। এটি শরীরে বেশি গেলে ক্যানসারের আশঙ্কা থাকে। এটি লিভারে বিষ (টক্সিন) তৈরি করতে পারে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, দিনে ২ গ্রাম দারুচিনি খাওয়া যেতে পারে।

Check Also

ধূমপান ছেড়ে দিয়েছেন যেসব তারকা

ধূমপায়ী হিসেবে এক সময় বলিউডে প্রায় সবার উপরে নাম ছিল সালমান খানের। কিন্তু স্নায়ুর রোগে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *