Home / ফটো গ্যালারি / কিডনিতে পাথর হওয়া থেকে বাঁচতে যে খাবারগুলো খাবেন না

কিডনিতে পাথর হওয়া থেকে বাঁচতে যে খাবারগুলো খাবেন না

আপনার পরিবারে যদি কিডনি স্টোনের ইতিহাস থেকে থাকে, তাহলে অক্সালেট যুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। যেমন, মুলা শাকে প্রচুর পরিমাণে অক্সালেট রয়েছে।

আপনার পরিবারে যদি কিডনি স্টোনের ইতিহাস থেকে থাকে, তাহলে অক্সালেট যুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন। যেমন, মুলা শাকে প্রচুর পরিমাণে অক্সালেট রয়েছে।

কফি, চা বা সোডা অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনিতে মাত্রাতিরিক্ত চাপ পড়ে। সে ক্ষেত্রে ইউরিনে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বেড়ে গিয়ে কিডনি স্টোনের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

কফি, চা বা সোডা অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনিতে মাত্রাতিরিক্ত চাপ পড়ে। সে ক্ষেত্রে ইউরিনে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ বেড়ে গিয়ে কিডনি স্টোনের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

অতিরিক্ত পরিমাণে রেড মিট খেলে কিডনি স্টোনসহ কিডনির নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। রেড মিট খেলে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের পরিমাণও বেড়ে যায় যা কিডনির পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর।

অতিরিক্ত পরিমাণে রেড মিট খেলে কিডনি স্টোনসহ কিডনির নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। রেড মিট খেলে শরীরে ইউরিক অ্যাসিডের পরিমাণও বেড়ে যায় যা কিডনির পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকর।

চিনি খেলে ওজন বেড়ে যেতে পারে, এই ভয়ে অনেকেই ক্যালরি কমাতে খাবারের সঙ্গে কৃত্রিম চিনি খান। একই কারণে অনেকেই ডায়েট সোডাও খান। এতে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা অনেকটাই বেড়ে যায়।

চিনি খেলে ওজন বেড়ে যেতে পারে, এই ভয়ে অনেকেই ক্যালরি কমাতে খাবারের সঙ্গে কৃত্রিম চিনি খান। একই কারণে অনেকেই ডায়েট সোডাও খান। এতে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা অনেকটাই বেড়ে যায়।

শরীরে ফ্লুইডের সঠির মাত্রা ধরে রাখতে ডায়েটে সোডিয়াম থাকা প্রয়োজন। তবে খাবারে অতিরিক্ত মাত্রায় নুন খাওয়া কিডনি স্টোনের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

শরীরে ফ্লুইডের সঠির মাত্রা ধরে রাখতে ডায়েটে সোডিয়াম থাকা প্রয়োজন। তবে খাবারে অতিরিক্ত মাত্রায় নুন খাওয়া কিডনি স্টোনের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

এনার্জি ড্রিঙ্ক, সোডা, সিন্থেটিক জুস অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

এনার্জি ড্রিঙ্ক, সোডা, সিন্থেটিক জুস অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

সয়া রাইস, চিপ্স বা যে কোনো প্রসেসড খাবার অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনি ও লিভারের কার্যকারিতা কমে যায়। ফলে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা বেড়ে যায়।

সয়া রাইস, চিপ্স বা যে কোনো প্রসেসড খাবার অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনি ও লিভারের কার্যকারিতা কমে যায়। ফলে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা বেড়ে যায়।

সয়া রাইস, চিপ্স বা যে কোনো প্রসেসড খাবার অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনি ও লিভারের কার্যকারিতা কমে যায়। ফলে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা বেড়ে যায়।

সয়া রাইস, চিপ্স বা যে কোনো প্রসেসড খাবার অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে কিডনি ও লিভারের কার্যকারিতা কমে যায়। ফলে কিডনি স্টোনের আশঙ্কা বেড়ে যায়।

Check Also

ছুটি কাটাতে গিয়ে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন স্বস্তিকা

বেড়াতে যাওয়ার আগে বিমানবন্দর থেকে সেলফি তুলে সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন অভিনেত্রী স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়। ছবিতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *