Home / জাতীয় / ফাগুনে ৮ কোটি টাকার ফুল বিক্রির আশা চট্টগ্রামে

ফাগুনে ৮ কোটি টাকার ফুল বিক্রির আশা চট্টগ্রামে

ঢাকার ডাক ডেস্ক   :   ফাগুনের আগুন মাখা রোদ ইতোমধ্যেই ডানা মেলেছে। চট্টগ্রামের শিল্প-সাহিত্যের প্রাণ কেন্দ্র চেরাগী পাহাড়কেও ছুঁয়ে গেছে ফাগুন। গ্লাডিওলাস, ডালিয়া, গাঁদা, জারবেরা, জিপসি, কাঠমালতী, কামিনী, বেলি, জবা, গন্ধরাজসহ নানা প্রজাতির ফুলে ছেয়ে গেছে বন্দর নগরীর সবগুলো ফুলের দোকান।

পহেলা ফাগুন, ভালোবাসা দিবস আর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে ঘিরে এসব ফুল দোকানে চলে রাজ্যের ব্যস্ততা। বসন্তকে স্বাগত জানাতে পহেলা ফাগুনকে নিয়ে আশায় বুক বেঁধেছেন চট্টগ্রামের এসব ফুল ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, ফাগুনের আগামী কয়েকদিনে প্রায় ৮ কোটি টাকার ফুল বিক্রি করবেন।

ফুল ব্যবসায়ীরা জানান, জেলার চন্দনাইশের খাগড়িয়া, কক্সবাজারের চকরিয়া, যশোরের গদখালি ও পানিসার এমনকি সিঙ্গাপুর থেকেও ফুল আসছে। রজনীগন্ধা, গোলাপ, জারবেরা, গাঁদা, গ্লাডিওলাস, জিপসি, রডস্টিক, ক্যালেন্ডুলা, চন্দ্রমল্লিকা, জিপসি, কাঠমালতী, কামিনী, বেলি ফুল বেশি আসছে।

সূরভী ফুল বিতানের আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘লিলি, থাই গোলাপ, কিসিমসিমা মিম, অর্কিড, লিমু, গেলোডিয়াস, রজনীগন্ধা, ক্যালেন্ডুলা, গোলাপ, জারবেরা, গ্লাডিওলাস, জিপসি, চেরিগেণ্ডা, গাঁদা, মাম ফুলসহ দেশি-বিদেশি নানান ফুলে আমরা দোকান সাজিয়েছি। সঙ্গে রয়েছে পহেলা ফাগুনের জন্য মাথায় পড়ার ফুলের তোড়া। এ সময়টা সব ধরনের ফুলের চাহিদা বেশি থাকে, তবে গোলাপের কদর আলাদা। বিশেষ করে ভালোবাসা দিবসে গোলাপের চাহিদা বেশি হয়, দামও বেশি।’

Ctg-flower-shop

ফুল বিক্রি নিয়ে আশার সঙ্গে রয়েছে হতাশাও। চট্টগ্রামের শঙ্খ নদীর দুই তীরে ফুল চাষের জন্য বিখ্যাত। তবে এবার ফুলচাষীদের মুখে হাসি নেই। প্লাস্টিকের ফুলের কারণে শত শত ফুলচাষী মনের হাসি নিভে গেছে। একই কারণে লোকসান গুনছেন পেশাদার ফুল বিক্রেতারাও।

জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে কিছু মৌসুমী ফুল ব্যবসায়ীরা বিদেশ থেকে প্লাস্টিকের ফুল আমদানি করায় দেশীয় ফুল ব্যবসায় ধস নেমেছে। সেই সাথে ফুল চাষের পরিধিও হ্রাস পেয়েছে। একই কারণে চলতি বছর দেশের বিভিন্ন এলাকায় উৎপাদিত ফুল বিক্রিও কমে গেছে বলে জানান ব্যবসায়ীরা। তারা বলেন, শুধু বিশেষ বিশেষ দিবস ছাড়া ফুলের কদর খুবই কম।

Ctg-flower-shop

চট্টগ্রাম ফুল ব্যবসায়ী দোকান মালিক সমিতির সভাপতি মো. নাছের গনি চৌধুরী বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে কিছু অসাধু ফুল ব্যবসায়ী বিদেশ থেকে নানা রকমের প্লাস্টিকের ফুল আমদানি করায় দেশি তাজা ফুলের বাজারে ধস নেমেছে। এ কারণে চট্টগ্রামসহ সারাদেশে ফুলচাষ ও বিক্রির সাথে জড়িত কয়েক লাখ মানুষের জীবন জীবিকা হুমকির মুখে। সরকারিভাবে বিদেশ থেকে প্লাস্টিকের ফুল সম্পূর্ণ নিষেধ করা প্রয়োজন। তা না হলে দেশের সম্ভাবনাময় ফুলশিল্প হারিয়ে যাবে।’

Ctg-flower-shop

তিনি আরও বলেন, ‘চেরাগী পাহাড় এলাকায় ৩০টির বেশি ফুলের দোকান আছে। এছাড়া রাঙ্গামাটি-কক্সবাজারসহ বৃহত্তর চট্টগ্রামে ফুলের দোকান আছে প্রায় দেড় হাজার। জাতীয় নির্বাচনের কারণে এবার বিজয় দিবস ও ইংরেজি নববর্ষে ফুলের ব্যবসা জমেনি। ফলে ফাল্গুন মাসকে কেন্দ্র করে সারা বছরের মন্দা কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করছেন ব্যবসায়ীরা। আশা করেছি, সামনের কয়েক দিনে বৃহত্তর চট্টগ্রামে ৮ কোটি টাকার ফুল বিকিকিনি হবে।’

Check Also

মহাখালীতে গার্মেন্টসে আগুন

ঢাকার ডাক ডেস্ক  :    রাজধানীর মহাখালী তিতুমীর কলেজ-সংলগ্ন একটি গার্মেন্টেসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২৪ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *