Monday , December 17 2018
Home / রাজনীতি / কক্সবাজারে ভাগ্য খুলছে জাপার কোন নেতার?

কক্সবাজারে ভাগ্য খুলছে জাপার কোন নেতার?

ঢাকার ডাক ডেস্ক   :    ঘোষিত তফসিল অনুসারে আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। প্রার্থিতা যাচাই-বাছাইয়ে কক্সবাজার জেলার ৪টি আসনে ৩০ জন প্রার্থী মনোনয়ন বৈধতা পেয়েছেন। এদের মধ্যে নৌকার প্রার্থীর পাশাপাশি বৈধতা নিয়ে মাঠে রয়েছেন জাতীয় পার্টির তিন প্রার্থীও। মহাজোটের ব্যানারে নির্বাচন হলে গতবারের নিয়মে এখানে একটি আসন জাপা পাচ্ছে-এমন আশায় সব আসনেই প্রার্থী মনোনয়ন জমা দিয়েছে জাপা। সেই হিসাবে জেলা জাপার কোন সেই নেতা যার ভাগ্য সুপ্রসন্ন হতে যাচ্ছে সেটা দেখতে ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে রাজনীতিবিদ ও সাধারণ ভোটারদের।

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্র মতে, কক্সবাজারের ৪টি আসনেই আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও চরমোনাই পীরের দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। শুধুমাত্র মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনেই প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। আর মুসলিম লীগ ও জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন গণঐক্যের ব্যানারে কক্সবাজার-৩ সদর আসন বাদে বাকি তিন আসনে প্রার্থী দিয়েছে।

জোটগত নির্বাচনের গতবারের হিসাব অনুযায়ী জেলার চারটির মধ্যে একটি আসনের দাবিদার জাপা। কেন্দ্রীয়ভাবে মনোনয়ন বরাদ্দকালে কক্সবাজার-৩ সদর আসনটি জিয়াউদ্দিন বাবলুকে মনোনয়নও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তিনি ভিন্ন জেলায় এসে প্রার্থী হতে অনিচ্ছা প্রকাশ করায় তার বিকল্প হিসেবে জেলা জাপার সেক্রেটারি মফিজুর রহমান মনোনয়ন জমা দিয়েছেন-এমনটি দাবি জাপা নেতাদের। কিন্তু তিনি দলীয় মনোনয়ন পেলেও জোটগত প্রার্থিতা এখনও পাননি। প্রার্থিতা পাননি বাকি দুই আসনের অন্য প্রার্থীরাও।

এরপরও জোটগত মনোনয়নের আশায় মাঠে বিচরণ করছেন মহাজোটের প্রধান শরীক দল জাতীয় পার্টির তিন নেতা। কক্সবজার-৩ সদর-রামু আসনে মফিজুর রহমানের বিপরীতে এ আসনে আওয়ামী লীগের হয়ে নৌকার টিকিট নিয়ে মাঠে রয়েছেন বর্তমান সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল।

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনে জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন টেকনাফ উপজেলা জাপা সভাপতি মাস্টার আবুল মনজুর। তিনি এমপি বদির হাতে ইতোপূর্বে শারীরিক লাঞ্ছনার শিকার হয়ে পরিচিতি পান। তার সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে মাঠে রয়েছেন বিতর্কিত সাংসদ আবদুর রহমান বদির স্ত্রী শাহিনা আকতার।

আর কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনে মাঠে রয়েছেন সেই আসনের বর্তমান সাংসদ মোহাম্মদ ইলিয়াছ। সেখানে আওয়ামী লীগের নৌকা নিয়ে মাঠে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আলম।

এ ছাড়াও কক্সবাজার-২ আসনে মনোনয়ন বৈধ করার আশায় প্রধান নির্বাচন কমিশনারের অফিসে আইনিভাবে তদবির চালাচ্ছেন মনোনয়ন বাতিল হওয়া মুহিবুল্লাহও।

জাতীয় পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক মুফিজুর রহমান বলেন, ‘ইতোপূর্বে কক্সবাজার-৩ সদর আসনটি জোটগতভাবে জাতীয় পার্টিকে বরাদ্দ দেয়া আছে। আমরা দলের সিদ্ধান্তে চার আসনেই প্রার্থী হয়েছি। আবার দলীয় সিদ্ধান্তে সবাই প্রত্যাহার করে নিতেও প্রস্তুত। তবে, কেন্দ্রীয় নেতা বাবলু এখানে না আসায় আমিই কক্সবাজার-৩ আসনটির দাবিদার।’

জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের বর্তমান সাংসদ মোহাম্মদ ইলিয়াছ বলেন, ‘মহাজোটের শরিক হিসেবে কক্সবাজার থেকে একটি আসন দাবি করেছে কেন্দ্র এবং জেলা জাপা। বিগত পাঁচ বছর জাপার এমপি হিসেবে চকরিয়া-পেকুয়ায় পরিকল্পিত উন্নয়ন করা হয়েছে। সে কারণে এবারও জাপা এ আসনটি দাবি রাখে। এরপরও কেন্দ্র থেকে জোটগতভাবে একটা সিদ্ধান্তে আসার প্রক্রিয়া চলছে। যে আসনটিই দেয়া হউক আমরা সেখানেই লড়ব।’

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল মোস্তফা বলেন, ‘একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যে চরম প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে রাজনৈতিক নেতা এবং সাধারণ ভোটাররা জানেন সেই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় টিকে থাকার মতো সাংগঠনিক শক্তি জেলা জাপার নেই। তাই সাংগঠনিকভাবেই আওয়ামী লীগই তাদের প্রার্থীকে জয়ী করে নিয়ে আসতে পারবে। এরপরও জোটগত সিদ্ধান্তে জাপা কোনো আসন পেয়ে থাকলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাদের হয়ে মাঠে কাজ করবে।’

তবে যে যা-ই বলুক না কেন, জোটগতভাবে জাপা কোন আসনটি পাচ্ছে সেটা দেখার জন্য আগামী ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এদিন কোন কোন প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করছেন তার ওপরই জাপার জেলা পর্যায়ের কোন নেতার ভাগ্য সুপ্রসন্ন হলো তা দেখতে পাবে কক্সবাজারবাসী।

উল্লেখ্য, কক্সবাজার জেলার ৪ পৌরসভা ও ৭১ ইউনিয়নে ৫১৩ ভোট কেন্দ্রের বিপরীতে এবারের ভোটারের সংখ্যা ১৩ লাখ ৬৮ হাজার ৮২ জন। এদের মধ্যে ৭ লাখ ৯ হাজার ৪৯৭ পুরুষ ও ৬ লাখ ৫৮ হাজার ৫৮৫ নারী।

Check Also

‘নিরপেক্ষ নির্বাচন না হলে কমিশনকে জবাবদিহি করতে হবে’

ঢাকার ডাক ডেস্ক   :    ‘আসন্ন নির্বাচনে সব দলের উপস্থিতিতে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *