Tuesday , October 16 2018
Home / সারা বাংলা / নিজের ৩০০ গরু বাজারে তুলবেন এনামুল

নিজের ৩০০ গরু বাজারে তুলবেন এনামুল

 রংপুর  প্রতিনিধি  :  কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে রংপুরে পশু খামার ও বাসা-বাড়িতে প্রায় পৌনে ১৪ লাখ পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। ভালো দাম পাওয়ার আশায় বিভাগের অধিকাংশ খামারি নিজেদের পুঁজি বিনিয়োগ করে কোরবানির বাজার ধরার জন্য এ পশু পালন করছেন।

এবার রংপুরের খামারি এনামুল হক তার ৩০০ গরু বাজারে তুলবেন। ভালো দাম পাওয়ার আশা করছেন তিনি। তবে গো-খাদ্যসহ আনুষঙ্গিক অন্যান্য খরচের তুলনায় পশুর দাম কিছুটা কম হওয়ায় লাভের মুখ দেখছেন না খামারিরা।

রংপুর বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্যমতে, কোরবানির পশু বিক্রির উদ্দেশ্যে বিভাগের আট জেলায় ৫৪ হাজার ২১টি বাণিজ্যিকভাবে গরু মোটাতাজাকরণ খামার গড়ে উঠেছে। এর মধ্যে রংপুরে ৮ হাজার ৪৪৯টি, নীলফামারীতে ২ হাজার ২৫০টি, কুড়িগ্রামে ১০ হাজার ৮৮২টি, দিনাজপুরে ১১ হাজার ৫৩২টি, লালমনিরহাটে ৪ হাজার ৬৯৩টি, গাইবান্ধায় ৮ হাজার ৬৮৪টি, ঠাকুরগাঁওয়ে ৪ হাজার ২৪১টি এবং পঞ্চগড়ে ৩ হাজার ২৯০টি।

Ranpur-Eid-Cow-1

এছাড়া অনেকে বেকারত্বের অভিশাপ ঘোচাতে আবার কেউ সংসারে সচ্ছলতা আনতে খামার গড়ে তুলে বিভিন্ন প্রজাতির পশু লালনপালন করছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, রংপুর বিভাগের আট জেলায় গত বছর ১১ লাখ ৭৬ হাজার ৬৩৯টি পশু জবাই করা হয়েছে। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বছর হওয়ায় গতবারের তুলনায় এবার ঈদে কোরবানির চাহিদা কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে।

এর বিপরীতে স্থানীয় সরকারি পশু চিকিৎকদের সহযোগিতায় এ বছর রংপুরের আট জেলায় কোরবানিযোগ্য ১৩ লাখ ৭৬ হাজার ১৬৬টি পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। এর মধ্যে ছাগল ও ভেড়া ৪ লাখ ৮২ হাজার ৭৬৯টি, গরু, মহিষ, বলদ, ষাঁড় ও গাভি ৮ লাখ ৯২ হাজার ৯০৫টি এবং অন্যান্য ৪৯২টি।

কোরবানিতে দেশি জাতের ও শংকর জাতের গরুর চাহিদা বেশি থাকায় খামারিরা এ ধরনের গরু স্বাস্থ্যসম্মতভাবে মোটাতাজাকরণ শুরু করেছেন।

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার ঘোনাবাড়ি গ্রামের খামারি এনামুল হক প্রধান বলেন, আমার খামারে একশ গরু রয়েছে। এছাড়া অন্যের কাছে দুইশ গরু রেখেছি। এবার তিনশ গরু বাজারে তুলব।

রংপুরের মাহিগঞ্জ এলাকার খামারি ওয়াজেদ মিয়া ও তামপাটের আবু হানিফা বলেন, ঈদকে ঘিরে লাভের আশায় পশু মোটাতাজাকরণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখেন খামারিরা। তবে ঈদ উপলক্ষে ভারত থেকে পশু আমদানি করা হলে লোকসানের মুখে পড়ি আমরা।

Ranpur-Eid-Cow-1

কুড়িগাম পৌর এলাকার বকশীপাড়ার তরুণ খামারি মাহমুদুল হাসান বাপ্পী জানান, তার খামারে কোরকানিযোগ্য ২০টি গরু রয়েছে। গত ৬ মাস ধরে তিনি এসব গরু লালন-পালন করছেন। বর্তমান বাজার অনুযায়ী বিক্রি হলে তিনি লাভবান হবেন। তবে বাইরে থেকে গরু আমদানি হলে দামে বিপর্যয় হতে পারে বলে আশঙ্কা তার।

রংপুর বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অফিসের উপ-পরিচালক ডা. শেখ আজিজুর রহমান বলেন, ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে এবার রংপুর বিভাগে গরুর খামারিরা যে পরিমাণ গরু লালন-পালন করছেন তাতে ঈদে কোরবানির পশুর চাহিদা মেটানোর পরও প্রায় দুই লাখ পশু উদ্বৃত্ত থাকবে। যা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠাতে পারবেন খামারিরা।

তিনি আরও বলেন, কৃত্রিম উপায়ে যাতে কোনো খামারি গরু মোটাতাজা করতে না পারে সেজন্য আমাদের মাঠকর্মীরা বিভাগের আট জেলার বিভিন্ন উপজেলায় দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন। রোগবালাইমুক্ত সুস্থ, সবল পশুর জন্য স্টরয়েট জাতীয় খাবার পরিহার করে বিশুদ্ধ পানি ও খাবার খাওয়ানোর পরামর্শ দেন তিনি।

Check Also

বিএনপি নেতাকে টেনেহিঁচড়ে গাড়িতে তুলল পুলিশ

সিলেট   প্রতিনিধি  :    বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সিলেটে স্বেচ্ছাসেবক দল-যুবদল এবং ছাত্রদলের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *