Home / সারা বাংলা / মাগুরছড়া ট্রাজেডি : ২১ বছরেও মেলেনি ক্ষতিপূরণ

মাগুরছড়া ট্রাজেডি : ২১ বছরেও মেলেনি ক্ষতিপূরণ

মৌলভীবাজার  প্রতিনিধি  :  মৌলভীবাজারের মাগুরছড়া গ্যাসকূপ বিস্ফোরণের ২১ বছর পূর্ণ হচ্ছে বৃহস্পতিবার (১৪ জুন)। ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন মধ্যরাতে হঠাৎ বিস্ফোরণের শব্দে কেঁপে ওঠেছিল গোটা মৌলভীবাজার।

সেদিন প্রায় ৫০০ ফুট উচ্চতায় লাফিয়ে উঠা আগুনের লেলিহান শিখায় লন্ডভন্ড করে দিয়েছিল বিস্তীর্ণ এলাকা। আগুনের শিখায় গ্যাসফিল্ড সংলগ্ন লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাগুরছড়া খাসিয়াপুঞ্জি, জীববৈচিত্র্য, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন, ফুলবাড়ী চা বাগান, সিলেট-ঢাকা ও সিলেট- চট্টগ্রাম রেলপথ এবং কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। গত ২১ বছরেও জনসম্মুখে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা প্রকাশ হয়নি। ফলে মেলেনি ক্ষতিপূরণ।

বিভিন্ন সংগঠন মাগুরছড়া দুর্ঘটনার যথাযথ ক্ষতিপূরণ আদায়ের দাবিতে আন্দোলন করলেও দীর্ঘ ২১ বছরে ক্ষতিগ্রস্তদের দাবিকৃত ক্ষতিপূরণ দেয়ার বিষয়টি অমীমাংসিত রয়েছে।

গ্যাসকূপ বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধানের জন্য গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট আজ পর্যন্ত জনসম্মুখে প্রকাশ করা হয়নি। তৎকালীন সরকার ক্ষতিপূরণ আদায়ের জোরালো ভূমিকা পালন করেনি। ফলে মাগুরছড়া দুর্ঘটনার ২১ বছর পার হলেও আজো ক্ষতিপূরণ না পেয়ে নীরবে চোখের জল ফেলছে ক্ষতিগ্রস্তরা।

কমলগঞ্জ উপজেলার সংরক্ষিত বনাঞ্চলের ভেতরে লাউয়াছড়া ফরেস্ট বিটের অভ্যন্তরে মাগুরছড়া এলাকায় ১৯৮৪-৮৬ ও ১৯৯৪ সালে সাইসলিক সার্ভেতে গ্যাস মজুদের সন্ধান পাওয়া যায়।

১৯৯৫ সালের ১১ জানুয়ারি মার্কিন বহুজাতিক তেল ও গ্যাস উত্তোলনকারী কোম্পানি অক্সিডেন্টালের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় এবং গ্যাস উত্তোলনের জন্য ৬৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে অনুমতি দেয়া হয়।

দায়িত্ব গ্রহণের পর অক্সিডেন্টাল কোম্পানি মাগুরছড়ায় গ্যাস ফিল্ডের ড্রিলিং কাজের জন্য সাব-লিজ দিয়েছিল ডিউটেক নামের জার্মানি কোম্পানিকে। গ্যাস উত্তোলনে ১৪ নং ব্লকের মাগুরছড়াস্থ মৌলভীবাজার-১ গ্যাসকূপের খননকালে ৮৫০ মিটার গভীরে যেতেই ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন মধ্যরাতে ঘটে ভয়াবহ বিস্ফোরণ।

এ সময় শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ ১৫ কি.মি. (৩৩ হাজার কেভি) উচ্চতাপ বৈদ্যুতিক লাইন পুড়ে নষ্ট হয়। কুলাউড়া, বড়লেখা ও কমলগঞ্জ উপজেলার ৫০টি চা-বাগানে বিদ্যুৎ সংকট দেখা দেয়। ৬৯৫ হেক্টর বনাঞ্চলের বৃক্ষ সম্পদ, পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এছাড়া ২৪৫ বিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পুড়ে নষ্ট হয়, যার বাজার মূল্য দাঁড়ায় ১৪ হাজার কোটি টাকা। গ্যাস বিস্ফোরণের পর অক্সিডেন্টাল তাদের সহোদর ইউনোকলের কাছে দায়িত্ব দিয়ে দেশ ত্যাগ করলে দুই বছর পর ফুলবাড়ি চা বাগান, পার্শ্ববর্তী মাগুরছড়া খাসিয়া পুঞ্জির বাড়ি-ঘর, পান জুম এলাকার ক্ষয়ক্ষতি বাবদ আংশিক টাকা প্রদান করে ইউনোকল।

অন্যদিকে দুর্ঘটনাস্থলের কাছাকাছি কমলগঞ্জ শ্রীমঙ্গল সড়কের পাশে সামাজিক বনায়নের নষ্ট হওয়া গাছের জন্য ৩ ব্যক্তিকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়।

দীর্ঘ ৬ মাস কমলগঞ্জ শ্রীমঙ্গল সড়ক যোগাযোগ বন্ধ থাকার কারণে ক্ষতিপূরণ বাবদ বাস মালিক সমিতিকে ২৫ লাখ টাকা দেয়া হয়। সেই সঙ্গে বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন সময়ে কিছু ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়েছে। কিন্তু পরিবেশ ও গ্যাস বাবদ কোনো ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়নি এবং কোনো সরকারই ক্ষতিপূরণ আদায়ে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় জনমনে সন্দেহ বিরাজ করছে। দুর্ঘটনার পর তৎকালীন সরকারের খনিজ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহফুজুল ইসলামকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। তদন্ত কমিটি ১৯৯৭ সালের ৩০ জুলাই মন্ত্রণালয়ে রিপোর্ট দেয়। তাদের রিপোর্ট অনুযায়ী অক্সিডেন্টালের দায়ীত্বহীনতাকেই দায়ী করা হয়।

২০০৩ সালের ১১ মে ইউনোকলের বিরুদ্ধে রুল জারি করে হাইকোর্ট। কেন সম্পূরক চুক্তি বাতিল করা হবে না এবং মাগুরছড়া গ্যাস ফিল্ডে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিপূরণ দেয়ার আগে গ্যাস-তেল উত্তোলন বন্ধ রাখতে কেন ইউনোকলকে নির্দেশ দেয়া হবে না- এই মর্মে ২ সপ্তাহের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

একই সঙ্গে সরকার ও পেট্রো বাংলাকেও কারণ দর্শাতে বলা হয়। বিচারপতি মো. আব্দুর রশীদ ও বিচারপতি সিদ্দিকুর রহমান মিয়ার সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছিলেন।

চট্টগ্রামের বিআইটির ইলেক্ট্রিক্যাল ও ইলেক্ট্রনিক্স বিভাগের প্রধান এম শামসুল আলমের রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ রুল জারি হয়।

সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা আবু মুসা মুহিত চৌধুরী বলেন, বনের ক্ষতি নিরূপণ করে দেয়া হলেও এ পর্যন্ত কিছুই পাওয়া যায়নি। প্রাকৃতিক বনের ক্ষতি কোনো সময়ে পুষিয়ে ওঠার নয়। মাগুরছড়া গ্যাসকূপ বিস্ফোরণে ক্ষতিপূরণ প্রদানে কোনো অগ্রগতি নেই। পূর্বে যে অবস্থায় ছিল এখনো সে অবস্থা।

মাগুরছড়ার গ্যাস সম্পদ ও পরিবেশ ধ্বংসের ক্ষতিপূরণ আদায় জাতীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আমিরুজ্জামান জানান, মাগুরছড়া ব্লো-আউটের ২১ বছর পূর্ণ হয়েছে। মার্কিন বহুজাতিক কোম্পানি শেভরন বাংলাদেশ চলে গেলে ক্ষতিপূরণের কী হবে? তাই সরকারকেই এ ব্যাপারে তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। মাগুরছড়া ব্লো-আউটে গ্যাস সম্পদ ও পরিবেশ ধ্বংসের ক্ষতিপূরণ আদায়ের জন্য আমারা ১০ দফা দাবিতে দীর্ঘদিন আন্দোলন করে আসছি।

Check Also

রংপুরে বাসের ধাক্কায় ৩ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

রংপুর  প্রতিনিধি  :  রংপুরের কাউনিয়ায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় তিন মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *